গ্রেট ইনিংস অথবা আউটস্ট্যান্ডিং বোলিংয়ের ভিডিও আপলোড করা আছে

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে ‘From the vault’ নামে একটা সেকশন আছে। সেখানে অস্ট্রেলিয়ার সাথে খেলা ম্যাচে অপোনেন্ট টিমের প্লেয়ারদের খেলা গ্রেট ইনিংস অথবা আউটস্ট্যান্ডিং বোলিংয়ের ভিডিও আপলোড করা আছে৷

সেই ম্যাচগুলোতে অস্ট্রেলিয়া জিতেছিল না হেরেছিল সেটা ভিডিওর ক্যাপশনে কোথাও লেখা নাই। কোন প্লেয়ারের কি ধরনের কীর্তি ছিল সেই ম্যাচে শুধু সেটা নিয়েই পুরা ভিডিও। কোন ম্যাচ হাইলাইটস না।

আজ সকালে যেমন দেখলাম, ব্রায়ান লারার সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে খেলা অপরাজিত ১১৬ রানের ইনিংসটির ভিডিও। ১০ চার, ২ ছয়ের সাহায্যে ১০৬ বলে খেলা। ২০০১ সালের কার্লটন সিরিজ, চতুর্থ ম্যাচ। (https:// youtu. be/34tsJlU2uNY) এটার ক্যাপশনঃ Lara’s defiant ton at the SCG.

আগে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া করেছিল ২৭৭ রান। ম্যাচের মাঝামাঝি সময়ে বৃষ্টি নামে। ডাকওয়ার্থ লুইস মেথডে ইন্ডিজের টার্গেট দাঁড়ায় ২৪০, ম্যাক্সিমাম ৪২.৪ ওভারে। চেজ করতে নেমে লারা বাদে অন্যদের অসহায় আত্মসমর্পণে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইনিংস শেষ হয় ২১১/৮ এ। মারলন ব্ল্যাক নামের প্লেয়ারটি ব্যাট করে নাই।

লারা সেঞ্চুরিতে পৌঁছায় ৯৭ বলে। বলের হিসাবে ১৬ ওভার ১ বলে। আনবিটেন থাকায় তার খেলা ১০৬ বল যদি বাদ দেয়া হয় ৪২.৪ ওভার থেকে, তাহলে তার বাকী টিমমেটরা (২৫৬-১০৬) ১৫০ বলে করতে পারে মাত্র ৯৫ রান।

লারাকে ‘প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ’ ঘোষণা করা হয়। পুরো ভিডিওতে ধারাভাষ্যকার টনি গ্রেগ লারার শটসগুলোর প্রশংসা করতে করতে গলা ফাটিয়ে ফেলছিল।

শট খেলার আগে লারার শাফলিংয়ের কারণে ভিডিওর নীচে অনেকেই এগুলোকে লারার ‘কোরিওগ্রাফি’ বলে মন্তব্য করেছেন।

লারার গ্রেটনেস আমার এই লেখার মূল বিষয়বস্তু না। সে এমনিতেই গ্রেটেস্টদের অন্যতম।

আমি চিন্তা করছিলাম, একটা দেশের ক্রিকেট সংস্কৃতি কতটা উন্নত হলে পরে তাদের ক্রিকেট বোর্ডের চ্যানেলে বিপক্ষ টিমের গ্রেট পারফরম্যান্সগুলো এভাবে সংরক্ষণ করা যায়।

অথচ, ইএসপিএন, স্টার স্পোর্টস চ্যানেলগুলোর মূল মালিক ওয়াল্ট ডিজনি হওয়া সত্ত্বেও এখানে যত পুরনো ক্রিকেট ম্যাচই দেখাক না কেন, ধরেই নিতে পারেন সেটায় শেষমেষ ইন্ডিয়া জিতবে।

এগুলোর চিত্রনাট্য টিপিক্যাল বলিউড মাসালা মুভির মতো – যেভাবেই হোক হিরো জিতে যাবে ভিলেনকে হারিয়ে। এটাই ট্র‍্যাডিশন।

সব ম্যাচই শেষ হয় এভাবে- “অতঃপর তাহারা সুখে শান্তিতে বসবাস করিতে লাগিল”।

১৩৫ কোটি জনসংখ্যার দেশের বাজার কেউ কি পরাজয়ের ইতিহাস দেখিয়ে নষ্ট করতে চায়?